স্বাস্থ্য রক্ষায় বিভিন্ন প্রকার গাছের ব্যবহার। (601)

স্বাস্থ্য রক্ষায় বিভিন্ন প্রকার গাছ-গাছড়ার ব্যবহার সেই আদীকাল থেকেই প্রচলিত। বিঙ্ঘানের এই চরম উন্নতির যুগে জনসংখ্যা বৃদ্বির ফলে এর ব্যবহার আরও ব্যপকতা লাভ করেছে এবং বড় বড় কোম্পানীগুলো আধুনিক পদ্ধতিতে গাছ-গাছড়ার সংরক্ষন ও ঔষধ প্রস্তুত করিতে আগ্রহী হয়েছে। হামদর্দ আজ একটি সুপরিচিত নাম যারা চার বছর মেয়াদী ডাক্তারী কোর্স চালু করেছে এবং নিজস্ব জায়গায় বিশ্ববিদ্যালয় পস্ততের পদক্ষেপ নিয়েছে। স্কোয়ারের মত একটি বড় কোম্পানীও আজ গাছ-গছড়া থেকে ওৗষধ প্রস্তত করছেন এবং অন্যান্য আরও বহূ কোম্পানী মূল্যবান ‍ঔষধ প্রস্তত ও রিছার্চ করছেন।

ইচ্ছাকরলে বাড়ীতে বসে আমরাও এই গাছ-গাছড়াগুলো থেকে ঔষধ প্রস্তত করতে পারি এবং নিজেদের কাজে ব্যবহার করতে পারি। তবে কোনটার কি কাজ এবং কিভাবে ব্যবহার করতে হবে তা জানা জরুরী।  এই উদ্দেশ্যে নিম্নে কতগুলি বহুল প্রচলিত গাছ-গাছড়ার গুনাবলী ও ব্যবহারের নিয়মাবলী বর্ণনা করা হইলঃ

(০১) তুলশীঃ

(০২) পেয়াজঃ

(০৩) রসুনঃ

(০৪) কলাপাতাঃ

(০৫) যজ্ঙ ডুমুরঃ

(০৬) কালমেঘঃ

(০৭) চিরতাঃ

(০৮) লাউঃ

(০৯) মধুঃ

(১০) গাজরঃ

(১১) পেপেঃ

(১২) শশাঃ

(১৩) হলুদঃ

(১৪) ডালিমঃ

(১৫) আমড়াঃ

(১৬) এলাচঃ

উপর থেকে অনেকগুলি গাছ-গাছড়া ও ফলের নাম আপনি পেয়েছেন। এখন এগুলি কোন কাজে কিভাবে ব্যাবহার করবেন তা জেনেনিন। মনে রাখবেন এগুলি বৈজ্গানিক ভাবে পরিক্ষিত নয়, কিন্ত দীর্ঘদিন যাবত মানুষ ব্যবহার করে আসছে এবং উপকৃত হচ্ছে। তবে সবার জন্য সমান উপকার নাও হতে পাড়ে। যা করবেন নিজ দ্বায়িত্বে এবং নিজের বিবেক বুদ্ধি খাটিয়ে।

 

(০১) তুলশীঃ

আয়ুর্বেদিক মতে তুলসীপাতা হার্টের অসুখ ইসকিমিয়ার চিকিৎসায় ভাল কাজ করে। পাচ বছর ধরে গবেষনা করে ডাঃ পি. জি. করুপ বলেছেন তুলসীপাতা যেকোন সময় চিবিয়ে খাওয়া যায় এবং ইহা সর্বোৎকৃষ্ট বনৌষধি। মেটেরিয়া মেডিকোতে এই গাছকে সর্বোচ্চ স্থান দেওয়া হয়েছে।

উপকার ও ব্যবহারঃ

* চর্মরোগঃ কিছু তুলসীপাতা পানিতে ভিজিয়ে রেখে কিছুক্ষন পড়ে সেই পানি দিয়ে গোসল করেলে চর্মরোগ হয়না।

* দন্তরোগঃ তুলসীপাতা চিবালে দাতে পোকা লাগেনা, দাত মজবুত ও উজ্জল হয় এবং দাতের আয়ো বৃদ্ধি পায়।

* কুষ্ঠরোগঃ

* গর্ভরক্ষাঃ

* জন্ডিসঃ

 

(Visited 922 times, 1 visits today)

Add a Comment